,

শিরোনাম :
«» মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যার প্রধান চ্যালেঞ্জ নিন্দা ও কুসংস্কার : সায়মা «» বগুড়া-৬ আসনে বেগম খালেদা জিয়াসহ ৫ জনের দলীয় মনোনয়ন সংগ্রহ «» ক্রয় সংক্রান্ত্র মন্ত্রিসভা উপ-কমিটির তিনটি সরকারি ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন «» বাংলাদেশ গেজেট, মঙ্গলবার ২৩ এপ্রিল অনুসারে গেজেট প্রকাশের দিন থেকে পরবর্তী সময়ে রির্টান এর ফি ও জরিমানা কার্যকর করলে ব্যবসায়ীদের জন্য ব্যবসা সহজী করন হবে। «» পা হারানো রাসেলকে ক্ষতিপূরণের বাকি টাকা আজও দেয়নি গ্রিনলাইন : আদালতের ক্ষোভ «» জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবেলায় বাংলাদেশকে গুরুত্ব দেয়ার আহবান স্পিকারের «» ভারতের জনগণ যাকেই নির্বাচিত করুক তার সঙ্গেই বিদ্যমান সম্পর্ক অব্যাহত থাকবে : কাদের «» আইন অনুযায়ী কেরানীগঞ্জে আদালত স্থাপন করা হয়েছে : তথ্যমন্ত্রী «» নবম ওয়েজ বোর্ড দ্রুত হয়ে যাবে : তথ্য প্রতিমন্ত্রী «» যুদ্ধ নয়, বাধা দিতেই ইরানের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান : পেন্টাগণ প্রধান

নুসরাত হত্যা: সোনাগাজীর ওসির বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন ২৭ মে

নিউজ ডেস্ক:-ফেনীর সোনাগাজী থানা থেকে প্রত্যাহার হওয়া অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোয়াজ্জেম হোসেনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের করা মামলায় তদন্ত প্রতিবেদন তারিখ আগামী ২৭মে নির্ধারণ করেছে ট্রাইব্যুনাল।

মঙ্গলবার মামলাটি পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য দিন নির্ধারিত ছিল। কিন্তু এ দিন পিবিআই তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করতে না পারায় সময়ের আবেদন করে। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক আসলাম জগলুল হোসেন তা মঞ্জুর করে নতুন করে এ দিন ঠিক করেন।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী নজরুল ইসলাম শামীম বলেন, আজ মঙ্গলবার আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য দিন ধার্য ছিল। কিন্তু পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) প্রতিবেদন দাখিল করতে না পারায় সময়ের আবেদন করেন। সে আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিচারক সময়ের আবেদন মঞ্জুর করে নতুন দিন ধার্য করেন।

সোনাগাজীর মাদরাসা শিক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফি থানায় অভিযোগ দিতে আসার পর তাকে আপত্তিকর প্রশ্ন করেন ও ভিডিওধারণ করে ছড়িয়ে দেন। এই অভিযোগে ওসির বিরুদ্ধে গত ১৫ এপ্রিল সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।

মামলার এজাহার থেকে জানা যায়, গত ২৭ মার্চ নুসরাতকে থানায় নিয়ে যান ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন। সেখানে তিনি নিয়ম বহির্ভূতভাবে নুসরাতকে জেরা করতে থাকেন। ওই জেরার সময় ভিডিও ধারণ করেন। পরবর্তীতে ফেসবুক ও ইউটিউবে তা ছড়িয়ে দেন। ওই সময় মোয়াজ্জেম হোসেন অত্যন্ত অপমানজনক এবং আপত্তিকর ভাষায় প্রশ্ন করেন নুসরাতকে। এক পর্যায়ে ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন ওই ভিকটিমের শ্লীলতাহানিও করেন। ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন যা করেছেন, তা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ২০১৮ অনুযায়ী দণ্ডনীয় অপরাধ।

ওই ঘটনায় ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ২৬, ২৯ ও ৩১ ধারায় মামলাটি দায়ের করা হয়। একইসঙ্গে আসামির বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করারও আবেদন জানান।

উল্লেখ্য, গত ২৭ মার্চ নুসরাত জাহান রাফিকে নিজ কক্ষে নিয়ে শ্লীলতাহানির অভিযোগে মাদরাসার অধ্যক্ষ সিরাজউদ্দৌলাকে আটক করে পুলিশ। ওই ঘটনার পর থেকে তিনি কারাগারে রয়েছেন। এ ঘটনায় রাফির মা শিরিন আক্তার বাদী হয়ে সোনাগাজী মডেল থানায় মামলা করেন। এর জেরে নুসরাতের গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয় অধ্যক্ষের সহযোগীরা। এপ্রিলের ১০ তারিখে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় নুসরাতের।

Share Button
সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত : সিএনআই২৪ ডটকম লিমিটেড || Desing & Developed BY Themesbazar.com