×
ব্রেকিং নিউজ :
সীতাকুন্ডে গৃহবধূকে গণধর্ষণ ও হত্যা মামলায় এক জনের মৃত্যুদন্ড নৃত্যকলা সাংস্কৃতিক ও আত্মিক মেলবন্ধন তৈরি করে : সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অপপ্রচার বন্ধে আরো তৎপর হোন : ডিসিদের প্রতি তথ্যমন্ত্রী ভিজিডি দুস্থ নারীদের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করছে : ইন্দিরা পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেনকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের শুভেচ্ছা বিএসএমএমইউ তহবিলে আর্থিক সহায়তা দিতে বিত্তবান ও ব্যাংকগুলোকে এগিয়ে আসার আহবান বর্তমান সরকার নৌখাতে প্রচুর বিনিয়োগ করেছে : খালিদ মাহমুদ চৌধুরী আসিয়ান ডায়ালগ পার্টনার হতে ইন্দোনেশিয়ার সমর্থন চেয়েছেন ড. মোমেন আগামী ২৫ জানুয়ারি থেকে বিমানের শারজাহ ফ্লাইট চালু হচ্ছে ‘ভূমি অপরাধ প্রতিরোধ ও প্রতিকার আইন’ মতামতের জন্য প্রকাশিত : ভূমিমন্ত্রী
  • আপডেট টাইম : 13/01/2022 11:42 PM
  • 43 বার পঠিত

প্রথমবারের মত দেশের পুঁজিবাজারে লেনদেন শুরু হলো ইসলামী শরিয়াহ ভিত্তিক বন্ড ‘বেক্সিমকো গ্রিণ সুকুক বন্ড’। আজ বৃহস্পতিবার থেকে দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই) একযোগে ৩ হাজার কোটি টাকার এই বন্ডের লেনদেন শুরু করেছে।
এই বন্ডই দেশের শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত ইসলামি শরিয়াহ ভিত্তিক প্রথম বন্ড। বেক্সিমকো গ্রিণ সুকুক ডিএসইতে তালিকাভূক্তিকরণের লক্ষ্যে আজ ডিএসই ও বেক্সিমকো লিমিটেডের মধ্যে একটি চুক্তি সই হয়েছে।  
এ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান এবং বিশেষ অতিথি ছিলেন পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান শিবলী রুবাইয়াত-উল ইসলাম।
ডিএসই'র মাল্টিপারপাস হলে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সালমান এফ রহমান তার বক্তব্যে বলেন, ব্যাংকে টাকা রাখলে বছর শেষে ৬ শতাংশ মুনাফা পাওয়া যায়, আর সুকুক দিচ্ছে ৯ শতাংশ। এটি আরও বাড়তে পারে।
তিনি বলেন, ‘সুকুকের যখন চিন্তা করা হচ্ছিল তখন আমাদের ধারণা ছিল, সাধারণ বিনিয়োগকারীরা এতে ব্যাপক সাড়া দেবে। কিন্তু বাস্তবে পুঁজিবাজারে এ ধরনের বন্ড নতুন হওয়ায় তেমন সাড়া পাওয়া যায়নি। তবে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে সাড়া পাওয়া গেছে।’
পরর্বতীতে সাধারণ বিনিয়োগকারীরাও সুকুকে আগ্রহ দেখিয়েছেন বলে জানান বেক্সিমকো গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান।
তিনি বলেন, ‘যখন চিন্তা করা হচ্ছিল ব্যাংকের সুদের হার ৯ শতাংশ (ব্যাংক থেকে ঋণ নিলে) ও ৬ শতাংশ (ব্যাংকে টাকা জমা রাখলে) করা হবে, তখন এ খাতের ব্যবসায়ীরা আশঙ্কা করেছিল, এটি ব্যবসার সহায়ক হবে কিনা। তবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে এটি বাস্তবায়ন হয়েছে। এখন দেখা যাচ্ছে ৯ ও ৬ শতাংশ সুদের হারেও ব্যাংক ভালো ব্যবসা করছে।’
উপদেষ্টা জানান, পুঁজিবাজারে এখনও দুটি বিষয়ে ঘাটতি আছে। একটি বন্ড মার্কেটে না থাকা, অপরটি প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা পুঁজিবাজারে সক্রিয় না হওয়া। এ বিষয়ের ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘বিশ্বের সব স্টক মার্কেটে ইক্যুইটি মার্কেটের তুলনায় বন্ড মার্কেট শক্তিশালী। ইক্যুইটির তুলনায় বন্ড মার্কেট বড় অথবা সমান সমান। তবে আমাদের এখানে উল্টো। এখন নতুন নতুন প্রোডাক্ট আসছে। পুঁজিবাজারে বৈচিত্র্য আসছে।’
তিনি জানান, শুধু বেক্সিমকো সুকুক নয়, এরই মধ্যে ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে বন্ড ইস্যুর উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। উত্তর সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে তিনটি আর দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে দুটি বন্ড ইস্যুর বিষয়ে কার্যক্রম চলমান রয়েছে।
প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টার মতে, ৩ হাজার কোটি টাকা যদি ব্যাংক থেকে নেওয়া হতো, তাহলে যে পরিমাণ জটিলতা হতো বন্ডের মাধ্যমে নেয়ায় তা সহজ হয়েছে। ভবিষ্যতে সরকারের বড় বড় প্রকল্প বন্ডের মাধ্যমে অর্থায়নের সুযোগ তৈরি হবে। প্রয়োজনে পদ্মা সেতুর জন্য অর্থয়ান করার প্রয়োজন হলেও এ অভিজ্ঞতা কাজে লাগানো যাবে।
অনুষ্ঠানে সালমান এফ রহমান দ্বিতীয় বিষয়টি উল্লেখ করতে গিয়ে বলেন, ‘একটি স্থিতিশীল মার্কেটে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের অবদান থাকে সবচেয়ে বেশি। রিটেল ইনভেস্টরদের অংশগ্রহণ থাকে কম। আমাদের এখানে উল্টো। এখানে রিটেল ইনভেস্টরদের বিনিয়োগ বেশি, আর প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের অংশগ্রহণ কম। ফলে পুঁজিবাজার গুজবভিত্তিক হয়ে থাকে।’
তিনি মনে করেন প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের উচিত রিটেল ইনভেস্টরদের পোর্টফোলিও ম্যানেজ করা। যারা নতুন বিনিয়োগ করতে আসে তাদের পোর্টফোলিও ম্যানেজ করলে পুঁজিবাজারে উত্থান-পতনের জটিলতা কম হবে। পুঁজিবাজারে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের সে আস্থা তৈরি করতে হবে।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বিএসইসির  চেয়ারম্যান শিবলী  রুবাইয়াত উল ইসলাম বলেন, ‘আজ একটি ঐতিহাসিক দিন। আমরা দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে বলছিলাম শুধু ইক্যুইটি ভিত্তিক প্রোডাক্ট দিয়ে পুঁজিবাজার চলতে পারে না। তখন থেকেই আমরা বিকল্প কিছু নিয়ে কাজ করছিলাম। তারই অংশ হিসেবে নতুন একটি প্রোডাক্ট লেনদেন শুরু করল সুকুক। এর মাধ্যমে পুঁজিবাজারকে সমৃদ্ধ করতে পেরেছি।’
তিনি বলেন, এই অর্থায়নে সবচেয়ে ভাল দিক এখানে জনগণের বা সাধারন বিনিয়োগকারীদের সম্পৃক্ততা রয়েছে।
বেক্সিমকো গ্রুপের যাত্রা ও পুঁজিবাজারে তার অবদান ব্যাখ্যা করতে গিয়ে বিএসইসি চেয়ারম্যান বলেন, বেক্সিমকো গ্রুপ বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া প্রথম কোম্পানি, যারা স্বাধীনতা পরবর্তী সময় প্রাইভেট কোম্পানি হিসেবে প্রথম আমদানি-রফতানির লাইসেন্স পেয়েছে। তারপর থেকেই তাদের যোগ্য নেতৃত্বে কর্পোরেট প্রতিষ্ঠানের উদাহরণ হিসেবে আমাদের সামনে এসেছে। কর্পোরেট কালচার বলতে আমরা যা বুঝাই, সেটি বেক্সিমকো ৭০ দশক থেকে দেখিয়ে আসছে।
অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে ডিএসইর চেয়ারম্যান মো. ইউনুসুর রহমান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক তারিক আমিন ভূইয়া বক্তব্য রাখেন।
বেক্সিমকো গ্রিণ সুকুক হলো দেশের বেসরকারী খাতের সম্পদ সমর্থিত প্রথম গ্রিণ সুকুক। এটি কেবলমাত্র একটি শরিয়াহ্ বন্ড যা শরিয়াহ্ বোর্ডের তত্বাবধানে পরিচালিত হবে। বন্ডের মেয়াদকাল ৫ বছর। গ্রিণ সুকুক হোল্ডারদের গ্রিণ সুকুকে তাদের নিজ নিজ বিনিয়োগের ১০০ শতাংশ পর্যন্ত ৫ বছরের মধ্যে বেক্সিমকো লিমিটেডের সাধারন শেয়ারে রূপান্তর করার বিকল্প ব্যবস্থা রয়েছে। যা প্রতিবছর ২০ শতাংশ হারে গ্রিণ সুকুক হোল্ডারগণ অর্ধ-বার্ষিক হারে বেইজ রেট এবং মার্জিনের ভিত্তিতে পর্যায়ক্রমিক বন্টনের পরিমান অর্থ পাওয়ার অধিকারী হবেন।
ডিএসই জানিয়েছে, নতুন তালিকাভুক্ত পাঁচ বছর মেয়াদি ৩ হাজার কোটি টাকার এ বন্ডের অভিহিত মূল্য ১০০ টাকা। নতুন তালিকাভুক্ত কোম্পানি হিসেবে ‘এন’ শ্রেণিতে এই বন্ডের লেনদেন শুরু হয়েছে। ফলে, নিয়ম অনুযায়ী এ বন্ড কেনার ক্ষেত্রে ৩০ কার্যদিবস ঋণসুবিধা পাবেন না বিনিয়োগকারীরা।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...