×
  • আপডেট টাইম : 16/06/2022 11:23 PM
  • 35 বার পঠিত

বাংলাদেশের সীমান্ত বানিজ্যের পরিমান, দক্ষতা,সম্ভাভ্যতা এবং নিরাপত্তা ব্যবস্থার উন্নয়নে গতকাল এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক এবং বাংলাদেশ সরকারের মধে ১৪৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের একটি পলিসি ভিত্তিক ঋণ চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। চুক্তিতে বাংলাদেশের পক্ষে অর্থনীতি সম্পর্ক বিভাগের সচিব ফাতিমা ্ইয়াসমিন এবং এডিবি’র পক্ষে সংস্থার কান্ট্রি ডিরেক্টর ইডিমন গিন্টিং স্বাক্ষর করেন।  এডিবি’র এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আজ এ খবর জানানো হয়।
এডিবি’র কান্ট্রি ডিরেক্টর গিন্টিং বলেন,  রফতানি বহুমুখিকরন এবং শিল্পায়ন ও ব্যবসা বাণিজ্যের প্রবৃদ্ধি তরান্বিত করার জন্য প্রতিযোগিতা এবং আঞ্চলিক ব্যবসা বাণিজ্য সম্প্রসারনে এডিবি সহায়তা করছে। তিনি  বলেন, এডিবি’র এই ঋণ সহায়তায় আগামী ২০২৭ সালের মধ্যে আখাউড়া, সোনামসজিদ এবং তমাবিল বর্ডার ক্রসিং পয়েন্টে (বিসিপি) আমদানির পরিমান ৫০ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে। পাশাপাশি কাস্টম ক্লিয়ারিং এবং কার্গো  ট্রান্সশিপমেন্টের গড় সময় ৫০ ভাগ হ্রাস পবে। তিনি  বলেন, তিনটি বিসিপি’তে ই-পেমেন্ট বাস্তবায়িত হবে। বছরে আন্তর্জাতিক ট্রানজিট কার্গো হ্যান্ডেলিং ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে এবং সেন্ট্রাল কাস্টমস ল্যাবরেটরি, কাস্টমস ওয়ারহাউস ও কাস্টমস রিজিওনাল ট্রেনিং একাডেমিকে পরিকল্পিতভাবে বিণ্যস্ত করা হবে।
সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, রফতানি বহুমুখিকরন এবং রফতানির মান উন্নয়ন, দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সহযোগিতা চুক্তি স্বাক্ষর এবং সীমান্ত এজেন্সি ও বেসরকারি স্টেক হোল্ডারদের মধ্যে সহযোগিতা বৃদ্ধির মাধ্যমে বাণিজ্য বৃদ্ধির লক্ষ্যে বাংলাদেশ বাণিজ্য সুবিধা সংস্কার করে যাচ্ছে। দক্ষিন এশীয় উপ-আঞ্চলিক অর্থনৈতিক সহযোগিতা বাণিজ্য সুবিধা (সাসেক)-এর সেক্টর উন্নয়ন প্রোগ্রাম (এসডিপি) বানিজ্য নীতি সংস্কার এবং আখাউড়া, সোনামসজিদ ও তমাবিল বিসিপি’তে  সীমান্ত বাণিজ্য সুবিধার উন্নয়ন  করবে।
এই চুক্তি একটি উপ-আঞ্চলিক কেন্দ্র হিসাবে বাংলাদেশ হয়ে সাসেক দেশসমূহের মধ্যে বাণিজ্য সুবিধার মাধ্যমে যোগাযোগও বৃদ্ধি পাবে।  এসডিপি বাংলাদেশকে উপ-আঞ্চলিক দেশসমূহের মধ্যে তাদের রফতানি বৈচিত্র বাড়াতে এবং তাদের রফতানী পণ্যের ঝুলি তৈরি পোশাক থেকে আরও অন্যান্য পণ্যসম্ভারে বাড়াতে সুযোগ সৃষ্টি করবে।
এডিবি’র ৯০ মিলিয়ন মাকির্ন ডলারের নীতিভিত্তিক লোনসহ সহায়তা প্যাকেজ দেশের কাস্টম ক্লিয়ারিং সিস্টেমকে আন্তর্জাতিক মানের করা এবং জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের ও বাণিজ্য মন্ত্রনালয়ের সক্ষমতা বৃদ্ধিসহ সকল ক্ষেত্রের  সংস্কারে সাহায্য করবে।
নীতি সংস্কারের আওতায় আখাউড়া, সোনামসজিদ এবং তমাবিল সীমান্ত ক্রসিং পয়েন্টে (বিসিপি) এনবিআর এবং বাংলাদেশ স্থল বন্দর কর্তৃপক্ষের  সমন্বিত ল্যান্ড কাস্টম স্টেশন ও স্থল বন্দর নির্মানে ৫৩ মিলিয়ন মাকির্ন ডলারের একটি প্রকল্প বাস্তবায়িত হবে। এখানে কাস্টম ক্লিয়ারেন্স এবং কার্গো শিপমেন্টের জন্য সুবিধা সম্বলিত যন্ত্রপাতি স্থাপন করা হবে।
এডিবি সেন্ট্রাল কাস্টমস ফ্যাসিলিটিসের অপারেশনাল পরিকল্পনা প্রস্তুত বিসিপি’তে আধুনিক কাস্টম অপারেশনে এনবিআর’র সক্ষমতা বৃদ্ধিতে বর্ডার এজেন্সিসমূহের মধ্যে কাস্টমস লিগ্যাল ফ্রেমওয়ার্ক আধুনিকায়নে দেয়া সংস্থার টেকনিক্যাল সহায়তা বিশেষ তহবিল থেকে ১.৫ মিলিয়ন ডলারের টেকনিক্যাল সহায়তা মঞ্জুরি প্রদান করা হবে।
এডিবি ১৯৭৩ সালের পর থেকে এ পযর্ন্ত বাংলাদেশে প্রায় ৪৮ বিলিয়ন ডলারের বিভিন্ন ধরনের লোন, মঞ্জুরি ও সহঅর্থায়ন সহায়তা দিয়েছে।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...