,

শিরোনাম :
«» ড. কামাল হোসেনের দুঃখ প্রকাশ «» রাষ্ট্রপতির সাক্ষাৎ চেয়ে ঐক্যফ্রন্টের চিঠি «» বেশি পারিশ্রমিক পাওয়া নারী তারকাদের তালিকায় শীর্ষে দীপিকা! «» দীর্ঘ বিরতির পর ফের লঙ্কানদের নেতৃত্বে ফিরলেন লাসিথ মালিঙ্গা «» পরিবেশ দূষণ রোধে বরগুনার তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে সর্বাধুনিক ব্যবস্থা নিশ্চিত «» পশ্চিম জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসাবে স্বীকৃতি দিয়েছে অস্ট্রেলিয়া «» বাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন «» রাজধানীর গুলশানে পুলিশ প্লাজায় আগুন «» বিটিভি’র রাঙামাটি প্রতিনিধি মোস্তফা কামালের মৃত্যুতে তথ্য মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও সচিবের শোক «» চলচ্চিত্রকার ও অভিনেতা আমজাদ হোসেনের মৃত্যুতে মন্ত্রিবর্গের শোক

প্রার্থী তালিকা নতুন করে পর্যালোচনা করছে বিএনপি

নিউজ ডেস্ক:–প্রার্থী তালিকা নতুন করে পর্যালোচনা করছে বিএনপি। গত দুই দিন এ নিয়ে গুলশান অফিসে দলের পার্লামেন্টারি বোর্ডের সদস্যরা বৈঠক করেছেন। তাদের সঙ্গে লন্ডন থেকে স্কাইপেতে যুক্ত থেকেছেন দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। ধানের শীষের ১৪১ জন প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল এবং কয়েকটি আসনে প্রার্থী শূন্য হওয়ার প্রেক্ষাপটে নতুন করে সাজাতে হচ্ছে তালিকা।

রিটার্নিং অফিসাররা প্রায় অর্ধশত আসনে দলের মূল প্রার্থীদের মনোনয়ন বাতিল করে দেয়ায় বিকল্প প্রার্থীদের মধ্য থেকে কাকে রাখা যায় তা ঠিক করা হচ্ছে। যেসব আসনে মূল প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল হয়ে গেছে, আপিলে সেটি বৈধ না হলে বিকল্প প্রার্থীকেই ধানের শীষের মূল প্রার্থী করা হবে। প্রার্থী শূন্য হয়ে যাওয়া আসনগুলোতে প্রার্থীরা শেষ পর্যন্ত বৈধতা না পেলে স্বতন্ত্র বা অন্য দলের যোগ্য প্রার্থীকে সমর্থন দিবে ঐক্যফ্রন্ট।

বিএনপির যেসব প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল হয়েছে তারা প্রায় সকলেই গত দুই দিনে নির্বাচন কমিশনে আপিল করেছেন। যারা বাকি আছেন তারা আজ আপিল করবেন। আপিল শুনানি হবে ৬ ডিসেম্বর। বিএনপি আশা করছে এই শুনানিতে তাদের প্রায় সব প্রার্থী বৈধতা পাবেন। না পেলে শেষ পর্যন্ত আদালতে যাবেন তারা।

দলের স্থায়ী কমিটির একজন সদস্য ইত্তেফাককে বলেন, আমরা ধারণা করেছিলাম ৩০০ আসনে একজন করে ধানের শীষের প্রার্থী দিলে বাছাইকালে অন্তত: একশত আসন ফাঁকা করে ফেলবে সরকার। সেখানে তারা কৌশলে ২০১৪ সালের মতোই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সংসদ সদস্য হয়ে যাবেন। সেই বিবেচনায় প্রতি আসনে ২ থেকে ৮ জন পর্যন্ত মনোনয়নপত্র দেয়া হয়েছে। রিটার্নিং অফিসের বাছাইয়ে ৫৫৫ জন টিকে আছেন। তাদের তালিকা পর্যালোচনা করে নতুন করে চূড়ান্ত করা হচ্ছে প্রার্থী তালিকা। ৮ ডিসেম্বরের মধ্যে চূড়ান্ত প্রার্থীর জন্য চিঠি দেয়া হবে। ইতিমধ্যে ২০ দলীয় জোটের শরিকদের সাথে আসন বন্টনের ফয়সালা হয়ে গেছে। ঐক্যফ্রন্টের সাথে আলোচনা চলছে।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, শত বাধা-প্রতিকূলতা, গ্রেফতার-নির্যাতন উপেক্ষা করে আগামী নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে আমরা দৃঢ প্রতিজ্ঞ। দু’একদিনের মধ্যেই ঐক্যফ্রন্টের আসন বন্টন নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আসবে। আলোচনা চলছে। আন্দোলনের অংশ হিসেবে আমরা নির্বাচনে অংশ নিয়েছি। সুতরাং আসন বন্টন নিয়ে কোন সমস্যা নেই।

উল্লেখ্য: নির্বাচন কমিশনের তফসিল অনুয়ায়ী আগামী ৯ ডিসেম্বর প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন। এর আগেই কে ধানের শীষের চূড়ান্ত প্রার্থী তা চিঠি দিয়ে নির্বাচন কমিশনকে জানাতে হবে।

সকল আসনে ঐক্যফ্রন্টের সমন্বয় কমিটি হচ্ছে

ধানের শীষের নির্বাচন পরিচালনার জন্য সারাদেশে ৩০০টি আসনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমন্বয় কমিটি গঠন করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন ফ্রন্টের প্রধান সমন্বয়ক বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল­াহ বুলু। গতকাল বিকালে রাজধানীর প্রীতম-জামান টাওয়ারে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত ঢাকা মহানগর সমন্বয় কমিটির সভায় তিনি এ কথা জানান।

নির্বাচনে থাকতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ বিএনপি

গতরাতে রাজধানীর গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, গণতান্ত্রিক সরকার প্রতিষ্ঠায় আমরা চাই, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও জনগণকে মুক্ত করতে। এই দেশের মানুষ বারবার লড়াই করে তাদের অধিকার ফিরিয়ে এনেছে।

Share
সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত : সিএনআই২৪ ডটকম লিমিটেড || Desing & Developed BY Themesbazar.com