,

শিরোনাম :
«» বিশ্বের বহু দেশের চাইতে বাংলাদেশের গণমাধ্যম অনেক বেশি স্বাধীনতা ভোগ করে : তথ্যমন্ত্রী «» সড়ক নির্মাণে গুণগতমান সুরক্ষার ওপর গুরুত্বারোপ সেতুমন্ত্রীর «» আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ডিএমপি’র নিরাপত্তামূলক কর্মসূচি «» বাংলাদেশ ব্যাংকের চুরি হওয়া রিজার্ভের অর্থ উদ্ধার কাজ এখনও চলমান রয়েছে : অর্থমন্ত্রী «» জনগণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অব্যাহত নেতৃত্ব চায় : ড. হাছান মাহমুদ «» বিশ্বকাপের সেঞ্চুরিয়ান «» বাংলাদেশে বিনিয়োগে আগ্রহী সংযুক্ত আরব আমিরাতের ২টি প্রধান ব্যবসায়ী গ্রুপ «» ২০৩০ সালের মধ্যে কালাজ্বর রোগীর সংখ্যা শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনা সম্ভব হবে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী «» স্বচ্ছতার প্রশ্নে আপোস নয় : শিক্ষামন্ত্রী «» আগের মতো এবারও স্থানীয় নির্বাচন প্রতিযোগিতামূলক এবং অংশগ্রহণমূলক হবে : সিইসি

‘জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতা থাকলেও মাথা নেই : ওবায়দুল কাদের

নিউজ ডেস্ক:–আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, নির্বাচনের আগে পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী নাম ঘোষণা করতে না পারা জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সবচেয়ে বড় পরাজয়।
তিনি বলেন, ‘জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতা থাকলেও মাথা নেই। তাদের এমন কোন ফেস (নেতা) নেই যিনি প্রধানমন্ত্রী হতে পারেন। দিন যত যাবে আগামী নির্বাচনে কারা ক্ষমতায় আসবে তা আরো স্পষ্ট হবে।’
এখন পর্যন্ত আওয়ামী লীগ এগিয়ে আছে উল্লেখ করে কাদের আরো বলেন, পরাজয়ের ভয়ে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচন থেকে সরে দাড়ানোর পরিকল্পনা নিয়ে এগুচ্ছে।
সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের আজ দুপুরে রাজধানীর ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগ সভাপতি এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন।
এ সময় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরীসহ অন্যান্য কেন্দ্রীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।
ওবায়দুল কাদের বলেন, নির্বাচনের ২৫ দিন আগে আন্দোলনের ঘোষনা দু:স্বপ্নের নামান্তর। নির্বাচনী পরিবেশ বিনষ্ট করতে বিএনপি অনেক উস্কানী দেয়ার চেষ্টা করেছে।
তিনি বলেন, দেশের জনগন এখন নির্বাচনের আমেজে রয়েছে। তারা এখন আন্দোলনের মুডে নেই। বিএনপি যতই আন্দোলনের কথা বলুক, জনগন এখন আর সে মুডে নেই। কিন্তু পরিস্থিতি অস্থিতিশীল করতে নানা ভাবে উস্কানী দেয়ার চেষ্টা করছে।
কাদের বলেন, নির্বাচনকে সামনে রেখে রাজনীতির মেরুকরণ স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। সাম্প্রদায়িক অপশক্তির নেতৃত্বে রয়েছে বিএনপি এবং অসাম্প্রদায়িক শুভ শক্তির নেতৃত্বে রয়েছে আওয়ামী লীগ। জনগণ আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে অসাম্প্রদায়িক শক্তির পক্ষে আওয়ামী লীগকেই বিজয়ী করবে।
তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ জনগনের শক্তির ওপর নির্ভরশীল। বিএনপি গুজবের ওপর নির্ভরশীল। বিএনপির জনগণের ওপর আস্থা কম। যাদের জনগণের ওপর আস্থা কম তারাই গুজবের ওপর নির্ভর করে। রাজধানীর নয়াপল্টনের বিএনপির কার্যালয় মিথ্যাচার আর গুজবের কারখানা।
এক প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাদের বলেন, মনোনয়ন নিয়ে অন্যবারের তুলনায় এবার দলের মধ্যে নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া অনেক কমে যাবে। তবে যারা বিদ্রোহী হবে তাদের আজীবনের জন্য দল থেকে বহিষ্কার করা হবে।
অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, দন্ডিত ব্যক্তির নির্বাচন না করাই ভালো। নৈতিকতার প্রশ্নে আওয়ামী লীগ এটাকে সমর্থন করে।
জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের গণগ্রেফতারের অভিযোগ অস্বীকার করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, তারা গণগ্রেফতারের যে অভিযোগ করেছে তা ভিত্তিহীন। গণগ্রেফতারের সুনির্দিষ্ট তালিকা ছাড়া তাদের এ ধরনের অভিযোগের কোন ভিত্তি নেই। তাদের গণগ্রেফতারের সুনিদিষ্ট তালিকা দিতে হবে। সন্ত্রাসী ও সুনিদিষ্ট মামলার আসামী ছাড়া কাউকে গ্রেফতার করা হয় নি।-বাসস

Share
সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত : সিএনআই২৪ ডটকম লিমিটেড || Desing & Developed BY Themesbazar.com