×
ব্রেকিং নিউজ :
সীতাকুন্ডে গৃহবধূকে গণধর্ষণ ও হত্যা মামলায় এক জনের মৃত্যুদন্ড নৃত্যকলা সাংস্কৃতিক ও আত্মিক মেলবন্ধন তৈরি করে : সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অপপ্রচার বন্ধে আরো তৎপর হোন : ডিসিদের প্রতি তথ্যমন্ত্রী ভিজিডি দুস্থ নারীদের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করছে : ইন্দিরা পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেনকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের শুভেচ্ছা বিএসএমএমইউ তহবিলে আর্থিক সহায়তা দিতে বিত্তবান ও ব্যাংকগুলোকে এগিয়ে আসার আহবান বর্তমান সরকার নৌখাতে প্রচুর বিনিয়োগ করেছে : খালিদ মাহমুদ চৌধুরী আসিয়ান ডায়ালগ পার্টনার হতে ইন্দোনেশিয়ার সমর্থন চেয়েছেন ড. মোমেন আগামী ২৫ জানুয়ারি থেকে বিমানের শারজাহ ফ্লাইট চালু হচ্ছে ‘ভূমি অপরাধ প্রতিরোধ ও প্রতিকার আইন’ মতামতের জন্য প্রকাশিত : ভূমিমন্ত্রী
  • আপডেট টাইম : 13/01/2022 11:09 PM
  • 46 বার পঠিত

উন্নয়নশীল আটটি দেশের জোট বা ডি-৮ ক্লাইমেট স্মার্ট কৃষিপ্রযুক্তির উন্নয়নের জন্য একটি ‘বহুদেশীয় সমন্বিত প্রকল্প’ নিতে বাংলাদেশের প্রস্তাবে সম্মত হয়েছে। যার মাধ্যমে ডি-৮ ভুক্ত এসব দেশে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবেলায় উন্নত কৃষিপ্রযুক্তি বিষয়ে যৌথ গবেষণা, প্রযুক্তি উদ্ভাবন, উন্নয়ন এবং সম্প্রসারণ করা হবে।
আজ বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিলে (বিএআরসি) কৃষি মন্ত্রণালয় আয়োজিত দুই দিনব্যাপী কৃষি ও খাদ্য নিরাপত্তা শীর্ষক ৭ম ডি-৮ মন্ত্রীপর্যায়ের ভার্চুয়াল সভার শেষ দিনে আট দেশের কৃষিমন্ত্রীরা এ বিষয়ে সম্মত হন। এ সময় তারা ঢাকা ইনিসিয়েটিভও অনুমোদন করেন।
সভায় বলা হয়, বিভিন্ন আন্তর্জাতিক দাতা সংস্থা যেমন, আইডিবি, এফএও, ইরি, ইফাদ থেকে আর্থিক ও কারিগরি সহায়তায় এই প্রস্তাবিত সমন্বিত প্রকল্প বাস্তবায়ন ও পরিচালিত হবে। খুব শিগগির এই প্রকল্প প্রণয়নের কাজ শুরু হবে।
সভায় সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশের কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক। তিনি বলেন, সারা বিশ্বে জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে কৃষি উৎপাদন ব্যবস্থা। ভবিষ্যতে কৃষি উৎপাদন ও খাদ্য নিরাপত্তা ব্যবস্থা টেকসই রাখতে হলে জলবায়ু পরিবর্তন সহনশীল ফসলের জাত ও প্রযুক্তির উদ্ভাবন এবং সম্প্রসারণ বাড়াতে হবে।
ড. রাজ্জাক আরও বলেন, ডি-৮ দেশসমূহে ক্লাইমেট স্মার্ট কৃষি প্রযুক্তির উন্নয়ন খুবই জরুরি। বৈশ্বিক উষ্ণতা ও জলবায়ু পরিবর্তনের মধ্যে এটি খাদ্য ও পুষ্টি নিরাপত্তা নিশ্চিত করা এবং মানুষের জীবনমান উন্নয়নে ভূমিকা রাখবে। ডি-৮ভুক্ত দেশসমূহের কৃষিখাত শতকরা ২৬ ভাগ মানুষের কর্মসংস্থান করে থাকে আর জিডিপিতে অবদান প্রায়  শতকরা ১৩ দশমিক ৫০ ভাগ।
সভায় ডি-৮ এর মহাসচিব ইসিয়াকা আব্দুল কাদির ইমাম, ইন্দোনেশিয়ার কৃষিমন্ত্রী সাইয়ারুল ইয়াসিন লিম্পু, ইরানের কৃষিমন্ত্রী সৈয়দ জেএস নেজাদ, মালয়েশিয়ার কৃষি ও খাদ্য মন্ত্রী রোনাল্ড কিয়ান্দি, পাকিস্তানের ফেডারেল মন্ত্রী সৈয়দ ফখর ইমাম, তুরস্কের পরিবেশ ও বন উপমন্ত্রী আকিফ ওজকাল্ডি, নাইজেরিয়ার কৃষি ও গ্রামীণ উন্নয়ন ফেডারেল মন্ত্রী মো. মাহমুদ আবু বকর এবং মিশরের এআরসির শিরীন আসেম কৃষিক্ষেত্রে জলবায়ু পরিবর্তনজনিত সমস্যা, সম্ভাবনা, করণীয় ও সহযোগিতা বৃদ্ধির বিষয়ে বক্তব্য রাখেন।
সভায় বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের সদস্যদের মধ্যে কৃষি মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. সায়েদুল ইসলাম, অতিরিক্ত সচিব মো. রুহুল আমিন তালুকদার, বিএআরসির নির্বাহী চেয়ারম্যান শেখ মো. বখতিয়ার এবং এফএও, ইসলামিক ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক, আইএফএডি, ইরি ও সিমিটের প্রতিনিধিগণ সভায় অংশগ্রহণ করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...