×
ব্রেকিং নিউজ :
উল্লাপাড়ায় জিগজ্যাগ ইট ভাটার ছাড়পত্র ও কয়লার সংকট নিরশনের দাবিতে মানববন্ধন বান্দরবানে অনুদানের চেক বিতরণ করলেন বীর বাহাদুর ঝালকাঠিতে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলের ২১ লাখ টাকার চেক বিতরণ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রশংসায় যুক্তরাষ্ট্রের নিউ হ্যাম্পশায়ারের হাউস অব রিপ্রেজেনটেটিভ বিএনপি অত্যাচারী দল, বিএনপির সঙ্গে জোটের প্রশ্নই ওঠে না : রওশন এরশাদ দুর্ভিক্ষ যাতে কখনই বাংলাদেশের ক্ষতি করতে না পারে সেজন্য আগে থেকে কাজ করুন : সচিবদের প্রতি প্রধানমন্ত্রী টোকিও নয়, প্রধানমন্ত্রীর জাপান সফর স্থগিত করেছে ঢাকা : পররাষ্ট্রমন্ত্রী খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সচিবদের প্রতি নির্দেশনা প্রধানমন্ত্রীর কৃষি জমি ও সম্পদের সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে : স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বন্দুকের নল ঠেকিয়ে ক্ষমতা দখলের সুযোগ নেই : শিক্ষামন্ত্রী
  • আপডেট টাইম : 22/11/2022 07:32 PM
  • 28 বার পঠিত

ইন্দোনেশিয়ার প্রধান দ্বীপ জাভাতে ভূমিকম্পে ১৬২ জন নিহত হওয়ার পর মঙ্গলবার উদ্ধারকারীরা  ধ্বংসস্তুপের নিচে চাপা পড়ে থাকা জীবিতদের সন্ধান করছে। এতে শত শত লোক আহত হয়েছে এবং ধসে পড়া ভবনে আটকে পড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। 
সোমবার ভূস্তরের অগভীর ৫.৬-মাত্রার ভূমিকম্পের কেন্দ্র স্থল ছিল ইন্দোনেশিয়ার সর্বাধিক জনবহুল প্রদেশ পশ্চিম জাভার সিয়ানজুর শহরের কাছে, যেখানে নিহতদের বেশীরভাগ ভবন ও  ভূমিধসে মারা গেছে এবং সবচেয়ে বেশী ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। 
চূর্ণবিচূর্ণ বিল্ডিং থেকে মৃতদেহগুলো বের করে আনার সাথে সাথে নিখোঁজদের অনুসন্ধান ও উদ্ধার প্রচেষ্টার দিকে জোর দেয়া হয়। ভূমিকম্পের কারণে শহরের রাস্তাগুলোতে বিক্ষিপ্ত প্রতিরন্ধকতার  কারণে পৌঁছানো কঠিন হয়ে পড়ে এমন এলাকায় ধ্বংসাবশেষের নীচে এখনও বেঁচে থাকা লোকদের উদ্ধার প্রচেষ্টা চালানো হচ্ছে। 
কয়েক ডজন উদ্ধারকারীদের মধ্যে একজন, ৩৪ বছর বয়সী ডিমাস রেভিয়ানস্যাহ বলেছেন, উদ্ধারকারী দল ধ্বংসাবশেষের স্তুপ ভেঙ্গে বেসামরিক নাগরিকদের আটকে থাকা জায়গায় পৌঁছানোর চেষ্টা চালাচ্ছে। 
তিনি বলেন ‘গতকাল থেকে আমি মোটেও ঘুমাইনি। তবে আমাকে অবশ্যই উদ্ধার কাজ চালিয়ে যেতে হবে। কারণ এমন লোক এখনো রয়েছে যাদের খুঁজে পাওয়া যায়নি।’ 
স্থানীয় সামরিক প্রধান রুডি সালাদিন এএফপিকে বলেছেন, ‘আজ আমাদের ফোকাস হল ভূমিধসে চাপা পড়া ক্ষতিগ্রস্তদের সরিয়ে নেয়া।’
‘এখনও আরও কিছু লোক উদ্ধার হওয়ার সম্ভাবনা আছে।’
ইন্দোনেশিয়ার জাতীয় দুর্যোগ প্রশমন সংস্থা, বা বিএনপিবি বলেছে, সোমবার অন্ধকার নেমে আসায় অন্তত ২৫ জন এখনও সিয়ানজুরে ধ্বংসস্তুপের নিচে চাপা পড়ে আছে।
নিহতদের মধ্যে কয়েকজন ইসলামিক বোর্ডিং স্কুলের ছাত্র এবং অন্যরা তাদের বাড়িতে ছাদ এবং দেয়াল ধসে পড়ে মারা গেছে।  
১৪ বছর বয়সী ছাত্র এপ্রিজাল মুলিয়াদি এএফপিকে বলেন, ‘কক্ষটি ধসে পড়ে এবং আমার পা ধ্বংসস্তুপের নিচে চাপা পড়ে যায়। সবকিছু দ্রুত ঘটেছিল।’
তিনি বলেন, তার বন্ধু জুলফিকার তাকে নিরাপদে টেনে নিয়ে গিয়েছিল, যে পরে ধ্বংসস্তুপের নিচে আটকে মারা গিয়েছে।
তিনি বলেন, ‘আমি তাকে এভাবে দেখে বিধ্বস্ত হয়েছিলাম, কিন্তু আমি তাকে সাহায্য করতে পারিনি।’ 
বৃহত্তর গ্রামীণ, পার্বত্য অঞ্চলের কিছু অংশে বিচ্ছিন্ন সড়ক যোগাযোগ এবং বিদ্যুৎ বিভ্রাটের কারণে মঙ্গলবার অনুসন্ধান অভিযান আরও চ্যালেঞ্জিং হয়ে উঠে।
মঙ্গলবার সকাল নাগাদ, রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন বিদ্যুৎ কোম্পানি পিএলএন সিয়াঞ্জুরের ৮৯ শতাংশ বিদ্যুৎ পুনরুদ্ধার করেছে। 
পশ্চিম জাভার গভর্নর রিদওয়ান কামিল বলেছেন, ৩০০ জনেরও বেশি লোক আহত হয়েছে এবং ১৩ হাজার মানুষকে আশ্রয় কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। 

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...