×
ব্রেকিং নিউজ :
সীতাকুন্ডে গৃহবধূকে গণধর্ষণ ও হত্যা মামলায় এক জনের মৃত্যুদন্ড নৃত্যকলা সাংস্কৃতিক ও আত্মিক মেলবন্ধন তৈরি করে : সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অপপ্রচার বন্ধে আরো তৎপর হোন : ডিসিদের প্রতি তথ্যমন্ত্রী ভিজিডি দুস্থ নারীদের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করছে : ইন্দিরা পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেনকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের শুভেচ্ছা বিএসএমএমইউ তহবিলে আর্থিক সহায়তা দিতে বিত্তবান ও ব্যাংকগুলোকে এগিয়ে আসার আহবান বর্তমান সরকার নৌখাতে প্রচুর বিনিয়োগ করেছে : খালিদ মাহমুদ চৌধুরী আসিয়ান ডায়ালগ পার্টনার হতে ইন্দোনেশিয়ার সমর্থন চেয়েছেন ড. মোমেন আগামী ২৫ জানুয়ারি থেকে বিমানের শারজাহ ফ্লাইট চালু হচ্ছে ‘ভূমি অপরাধ প্রতিরোধ ও প্রতিকার আইন’ মতামতের জন্য প্রকাশিত : ভূমিমন্ত্রী
  • আপডেট টাইম : 13/01/2022 11:17 PM
  • 46 বার পঠিত

বাংলাদেশ ও সিঙ্গাপুর দুই দেশের মধ্যে ব্যবসা-বাণিজ্যিক সম্পর্ক আরও জোরদারে মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি (এফটিএ) স্বাক্ষরের প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত করতে সম্মত হয়েছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন এবং সিঙ্গাপুরের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. ভিভিয়ান বালাকৃষ্ণানের মধ্যে টেলিফোনে কথোপকথনের সময় আজ এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে   একথা জানানো হয়।
কথোপকথনে  ড.মোমেন বলেন, বাংলাদেশ ও সিঙ্গাপুর তাদের মধ্যে এফটিএ চুক্তি হলে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য এবং বিনিয়োগ আরও বৃদ্ধির মাধ্যমে তারা পারস্পরিকভাবে লাভবান হবে। বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী দুই বন্ধুপ্রতিম দেশের মধ্যে বিদ্যমান চমৎকার দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কে সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, ঢাকা সিঙ্গাপুরকে অর্থনৈতিক উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে বিবেচনা করে।
দুই পররাষ্ট্রমন্ত্রী  দ্বিপাক্ষিক সম্পৃক্ততা প্রসারে সহযোগিতার নতুন নতুন ক্ষেত্র অন্বেষণের প্রয়োজনীয়তার বিষয়ে একমত হয়েছেন।
ড. মোমেন মিয়ানমারে তাদের নিজ দেশে দ্রুত প্রত্যাবর্তন নিশ্চিত করে রোহিঙ্গা সংকটের একটি  টেকসই ও স্থায়ী সমাধান আনতে সিঙ্গাপুর ও আসিয়ানের সক্রিয় ভূমিকা কামনা করেন।
জবাবে  ড. ভিভিয়ান আশ্বাস দিয়ে বলেন,  সিঙ্গাপুর এব্যাপারে এবং সংকটের স্থায়ী সমাধানের জন্য তাদের অব্যহত সমর্থন সক্রিয় রাখবে ।
ড. মোমেন চলমান কোভিড-১৯ মহামারীর সময়টাতে প্ররাসী বাংলাদেশী  শ্রমিকদের প্রতি সিঙ্গাপুর সরকারের অব্যাহত সহায়তার কথা সন্তোষের সঙ্গে উল্লেখ করেন। তিনি আরও পরামর্শ দিয়ে বলেন যে সিঙ্গাপুর বাংলাদেশ থেকে বিশেষ করে তাদের স্বাস্থ্য ও অন্যান্য পরিষেবা খাতে আরও দক্ষ কর্মী নিয়োগের বিষয়টি বিবেচনা করতে পারে। তিনি বাংলাদেশে বিদ্যমান বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশের সুবিধা গ্রহণ করে এখানে বিদ্যুৎ, টেলিযোগাযোগ, নবায়নযোগ্য জ্বালানি, বিদ্যুৎ সঞ্চালন খাতে আরও বিনিয়োগ করার জন্য সিঙ্গাপুরের বিনিয়োগকারীদের প্রতি আহ্বান জানান।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...